পরীক্ষাগারে এবার রামদেবের আমলা মোরব্বা

0
86

লখনউ : মাত্রাতিরিক্ত সীসা ও মনোসোডিয়াম গ্লুটামেটের জন্য ‘ম্যাগি’ বিক্রি যখন বন্ধ হয়েছিল, তখন বাজারে পরিবর্ত হিসাবে ‘আটা নুডলস’ এনেছিলেন যোগগুরু রামদেব বাবা৷এর পিছনে ব্যবসায়িক ‘ছক’ রয়েছে, এমনটাই সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন অনেকে৷

এখন যখন ‘ম্যাগি’ বাজারে স্বমহিমায় ফিরে এসেছে, তখন পরীক্ষাগারে গেল রামদেবের ‘আমলা মোরব্বা’৷

সম্প্রতি লখনউ-এর খাদ্য ফুড সেফটি ও ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিভাগের আধিকারকিদের হাতে এসেছে রামদেবের আমলা মোরব্বার ১ কেজির কৌটো৷ যার গায়ে দেখা যাচ্ছে ম্যানুফাকচারিং তারিখ রয়েছে অক্টোবর ২০১৬৷ এক্সপায়ারি তারিখ অক্টোবর ২০১৭৷ এখন চলছে ২০১৬-এর মার্চ মাস৷ সুতরাং রামদেব বাবা ভবিষ্যৎ থেকে পণ্য নিয়ে আসছেন , তা তো হতে পারে না৷ কল্যাণপুর রিং রোডে রামদেবের পতঞ্জলির দোকান থেকে এমন চারটি নমুনা সংগ্রহ করেছেন আধিকারিকরা৷

এফএসডিএ-র এক আধিকারিক জানান, রামদেবের আমলা মোরব্বা আয়ুর্বেদিক ওষুধ হিসাবে বিক্রি হয়৷ খাদ্যদ্রব্য হিসাবে একে ধরা যায় না৷ তবে রামদেবের বিভিন্ন জিনিসের মধ্যে থেকে পাঁচটি বেছে নেওয়া হয়েছে৷ সেগুলি পরীক্ষাগারে পাঠানো হবে৷ এর মধ্যে রয়েছে শোনপাপড়ি৷ রামেদেবের পতঞ্জলি সংস্থার দাবি অনুযায়ী সেটি গরুর দুধ, ঘি ও হলুদ দিয়ে তৈরি৷ পরীক্ষা করে দেখা হবে, দাবি অনুযায়ী সেগুলি তৈরি হয়েছে কি না, বা তাতে কোনও অস্বাস্থ্যকর উপাদান আছে কি না৷

ড্রাগ ইন্সপেক্টর, আয়ুর্বেদ বিভাগের ডায়েরক্টরেট শিবকুমার বর্মা জানিয়েছেন, পণ্য সম্পর্কে ভুল তথ্য ড্রাগ ও কসমেটিক আইনের শর্তের বিরোধী৷ রামেদেবের কিছু সিল প্যাক পরীক্ষার জন্য পাঠানো হচ্ছে৷ তার ফলের ওপরই পরবর্তী পদক্ষেপ স্থির হবে৷